চলন্ত বাসে গণধর্ষণের পর নার্স হত্যা মামলা দ্রুত বিচার আইনে নেয়ার দাবি

কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর উপজেলার পিরিজপুরের জামতলী এলাকায় স্বর্ণলতা যাত্রীবাহী পরিবহনে সেবিকা শাহিনুর আক্তার তানিয়া বাড়ি ফেরার পথে চলন্তবাসে গণধর্ষণের পর হত্যার প্রতিবাদে সামাজিক সংগঠন আশ্রয় ও স্বপ্ন এর আয়োজনে শনিবার ঘটনাস্থল জামতলীতে ঘন্টা ব্যাপী এক মানববন্ধন ও বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রাজীব সরকার পলাশের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন, নিহত শাহিনুর আক্তার তানিয়ার ভাই কফিল উদ্দিন সুমন, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেত্রী তানিয়া সুলতানা হ্যাপী, অধ্যক্ষ ফজলুল হক জোয়ারদার আলমগীর, প্রধান শিক্ষক নূরুল ইসলাম বিএসসি, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠক বদরুল আলম নাঈম, ছাত্র নেতা তারেক হাসনাত তারেক, আলী মোজাম্মেল, ছোটন মোদক, একেএম মুর্শেদ সজিব, শিক্ষক রফিকুল ইসলাম, রাকিবুল হান্নান মিজান, মোশারফ হোসেন কাজী, ওমর ফারুক প্রমুখ।

প্রচন্ড তাপদাহ উপেক্ষা করে শত শত নারী পুরুষ এবং পাঠক সংগঠন সমকাল সুহৃদ সমাবেশ মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশে অংশ গ্রহণ করেন।

বক্তারা এ নারকীয় হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত প্রকৃত আসামীদের দ্রুত বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান। উক্ত ঘটনাটিকে একটি মহল ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার জন্য হীনচেষ্টায় লিপ্ত হয়েছে। বক্তারা এর তীব্র নিন্দা জানান।

উল্লেখ্য গত ৬ মে ২০১৯ প্রথম রোজার দিন ঢাকা থেকে স্বর্ণলতা বাসে বাড়ি আসার পথে রাত আটটার সময় বাজিতপুর উপজেলার পিরিজপুর জামতলী এলাকায় গণধর্ষণের পর শাহিনুর আক্তার তানিয়াকে হত্যা করা হয়। তানিয়া কটিয়াদী উপজেলার লোহাজুরী ইউনিয়নের বাহেরচর গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের মেয়ে। গ্রেপ্তারকৃত আসামীদের বাজিতপুর থানায় রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.